Saturday, November 3rd, 2018
সংলাপের মধ্যে আবার আন্দোলনের ডাক কেন: প্রধানমন্ত্রী
November 3rd, 2018 at 8:11 pm
সংলাপের মধ্যে আবার আন্দোলনের ডাক কেন: প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে একাদশ জাতীয় নির্বাচন হবে, তাতে কোনো সন্দেহ নেই। এজন্য অপমান সয়েও দেশের মানুষের কথা ভেবে সংলাপে বসেছি। তাদের বক্তব্য শুনেছি, সংবিধান মেনে যতোটুকু সম্ভব তাদের দাবি মেনে নেওয়া হয়েছে। কিন্তু তারা যখন সংলাপে বসছে তখনই আবার আন্দোলনেরও ডাক দিচ্ছে। এটা কিভাবে দেখবো? সেটা দেশবাসীর ওপর ছেড়ে দিলাম।’

শনিবার রাজধানীর ফার্মগেটস্থ কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে (কেআইবি) বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আয়োজিত জেল হত্যা দিবসের স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে সংলাপে বসার জন্য আমি তাকে ডাকলাম। তাকে ফোন করলাম, তিনি ধরলেন না। ফিরতি ফোন করার মতো ভদ্রতাও দেখাননি। এরপর আমি আবারও ফোন করি, কী ধরনের অকথ্য গালিগালাজ করা হয়েছিলো আপনাদের নিশ্চয় মনে আছে। এরপর, নির্বাচন হলো।’

তিনি আরও বলেন, ‘২০১৫ সাল, খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে যখন মারা গেল; আমি গেলাম সন্তানহারা একজন মাকে মায়ের জায়গা থেকে সান্তনা দিতে। এটা এমন এক সময় যখন খালেদা জিয়া থ্রেট করেছে আমাদের সরকারকে উৎখাত না করে ঘরে ফিরবে না। তারপরও আমি গেলাম, কারণ আমি একজন মা। অথচ সমবেদনা জানাতে যাওয়ার পরও মুখের উপর দরজা বন্ধ করে দিল। ভেতরে গাড়ি ঢুকতে দেবে না। আমি বললাম আমি ছোট গেট দিয়ে যাবো। সে গেটটাও বন্ধ করে দেওয়া হলো। এরকম একটা অপমান, তারপরও আপনারা দেখেছেন; সবকিছু জেনেও, হয়ত ভুলতে পারবো না- সহ্য করে, চেয়েছি আগামী নির্বাচন যাতে অবাধ-সুষ্ঠু-নিরপেক্ষ হয়, কোন সন্দেহ না থাকে তাই সংলাপ হোক।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা আলাপ করতে চেয়েছে, সংলাপ করতে চেয়েছে, আমরা করেছি। একটা সুন্দর পরিবেশে আলোচনা হয়েছে। তারা যে সমস্ত দাবি-দাওয়া দিয়েছে, যে সব দাবি-দাওয়া আমাদের পক্ষে করা সম্ভব, আমরা বলেছি সেটা করব।

গত বৃহস্পতিবার গণভবনে সংলাপে প্রত্যাশিত সমাধান না পাওয়ার কথা জানিয়ে ৭ দফা দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপি নেতারা। বিএনপিসহ ঐক্যফ্রন্ট খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে সংসদ ভেঙে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি তুললেও সংবিধানের বাইরে গিয়ে কোনো দাবি পূরণ করা হবে না বলে তাদের জানিয়েছে ক্ষমতাসীনরা।

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদের পরিচালনায় জেল হত্যা দিবসের আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগ নেতা আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, মতিয়া চৌধুরী, মোহাম্মদ নাসিম, ওবায়দুল কাদের এবং নিহত চার নেতার পরিবারের সদস্যরা।

গ্রন্থনা ও সম্পাদনা: এম কে রায়হান


সর্বশেষ

আরও খবর

২৮ মার্চ পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের আন্দোলন স্থগিত

২৮ মার্চ পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের আন্দোলন স্থগিত


সুপ্রভাত ও জাবালে নূরের সব বাস নিষিদ্ধ করল বিআরটিএ

সুপ্রভাত ও জাবালে নূরের সব বাস নিষিদ্ধ করল বিআরটিএ


দ্বিতীয় দিনের মত রাস্তায় অবস্থান নিয়েছে শিক্ষার্থীরা

দ্বিতীয় দিনের মত রাস্তায় অবস্থান নিয়েছে শিক্ষার্থীরা


সুপ্রভাতের সেই বাসের নিবন্ধন সাময়িক বাতিল করেছে বিআরটিএ

সুপ্রভাতের সেই বাসের নিবন্ধন সাময়িক বাতিল করেছে বিআরটিএ


আজকের মতো সড়ক ছাড়লেন শিক্ষার্থীরা, বুধবার থেকে আবারও অবরোধ

আজকের মতো সড়ক ছাড়লেন শিক্ষার্থীরা, বুধবার থেকে আবারও অবরোধ


নেদারল্যান্ডসে ট্রামে হামলায় এক তুর্কি নাগরিক গ্রেফতার

নেদারল্যান্ডসে ট্রামে হামলায় এক তুর্কি নাগরিক গ্রেফতার


রাঙ্গামাটিতে উপজেলা আ’লীগ সভাপতিকে গুলি করে হত্যা

রাঙ্গামাটিতে উপজেলা আ’লীগ সভাপতিকে গুলি করে হত্যা


বেপরোয়া বাস আবারও পিষে মারল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রকে

বেপরোয়া বাস আবারও পিষে মারল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রকে


পুনর্নির্বাচনের দাবিতে উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান আন্দোলনকারীদের

পুনর্নির্বাচনের দাবিতে উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান আন্দোলনকারীদের


নিন্দা ও শোক জানাতে শেখ হাসিনাকে জাস্টিন ট্রুডো’র ফোন

নিন্দা ও শোক জানাতে শেখ হাসিনাকে জাস্টিন ট্রুডো’র ফোন