Thursday, September 22nd, 2016
‘সন্ত্রাসবাদ দমনে বাংলাদেশ জিরো টলারেন্সে বিশ্বাসী’
September 22nd, 2016 at 9:04 am
‘সন্ত্রাসবাদ দমনে বাংলাদেশ জিরো টলারেন্সে বিশ্বাসী’

নিউ ইয়র্ক: সন্ত্রাসবাদ দমনে বাংলাদেশ সবসময়ই জিরো টলারেন্সে বিশ্বাসী বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সদর দফতরে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় ভোর পৌনে ৫টার দিকে সাধারণ পরিষদের ৭১তম অধিবেশনে বাংলায় দেয়া ভাষণে তিনি একথা জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সন্ত্রাসের কোনো ধর্ম, বর্ণ বা গোত্র নেই। এদের সর্বত্রভাবে সমূলে উৎপাটন করার সংকল্পে আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।’

বর্তমান সময়ের দু’টি বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ হচ্ছে-জঙ্গিবাদ ও সহিংস চরমপন্থা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এই চ্যালেঞ্জগুলো কোনো নির্দিষ্ট গন্তব্যে আবদ্ধ না থেকে বিশ্বের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে। কোনো দেশই আপাতদৃষ্টিতে নিরাপদ নয়। কোনো ব্যক্তি এদের লক্ষ্যের বাইরে নয়। আমেরিকা থেকে ইউরোপ, আফ্রিকা থেকে এশিয়ায়;  অগণিত মানুষ সন্ত্রাসবাদের শিকার হচ্ছে।

এসময় ভাষণে প্রধানমন্ত্রী তার সরকারের নেয়া চলমান উন্নয়ন প্রকল্প এবং নানা সম্ভাবনার কথাও তুলে ধরেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের দেশে যেসব সন্ত্রাসীদের উদ্ভব হয়েছে, তাদের নিষ্ক্রিয় করা, তাদের নিয়মিত অর্থ সরবরাহ নিয়ন্ত্রণ করা এবং বাংলাদেশের ভূখণ্ড থেকে আঞ্চলিক সন্ত্রাসীদের নির্মূল করার ক্ষেত্রে আমাদের সরকার সফল হয়েছে। কয়েকটি আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী চক্রের উত্থানের সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয় কিছু প্রান্তিক গোষ্ঠী তাদের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে নতুন রূপে আবির্ভূত হয়ে থাকতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ একটি অসাম্প্রদায়িক দেশ। তবে গত ১ জুলাই আমরা এক ঘৃণ্য সন্ত্রাসী হামলার শিকার হই। ঢাকার একটি রেস্তোরাঁয় দেশীয় কিছু উগ্রপন্থী-সন্ত্রাসী ২০ জন নিরীহ মানুষকে হত্যা করে। এ সময় ১৩ জন জিম্মিকে উদ্ধারে সক্ষম হই। এই ভয়ংকর ঘটনা বাংলাদেশের জনগণের মনে এক গভীর ক্ষতের সৃষ্টি করেছে। বর্তমানে আমরা এই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছি।’

‘সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে জনগণকে সচেতন করতে এবং এর বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে আমরা ব্যাপক কর্মসূচি হাতে নিয়েছি। এতে সাড়া দেয়ার জন্য সমগ্র জাতির প্রতি আহ্বান জানিয়েছি। সমাজের প্রতি স্তর থেকে অভূতপূর্ব সাড়া পাচ্ছি’ যোগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

সংঘাত বন্ধ করে বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় সব দেশকে উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা ১৯৭৪ সালে জাতিসংঘে বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণ স্মরণ করেন।

জাতিসংঘের অভিবাসী ও শরণার্থীবিষয়ক সম্মেলনের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি আশা করি- এই সম্মেলনের মাধ্যমে বর্তমান সময়ে অভিবাসনের ধারণা ও বাস্তবতাকে নতুনভাবে সংজ্ঞায়িত করতে সাহায্য করবে। অভিবাসী ও শরণার্থীদের স্বদেশ ও গন্তব্য উভয় স্থানের জন্যই সম্ভাবনাময় পরিবর্তনের নিয়ামক হিসেবে বিবেচনা করতে হবে। বাংলাদেশ নিরাপদ, সুশৃংখল এবং নিয়মিত অভিবাসন সংক্রান্ত গ্লোবাল কমপ্যাক্ট রূপরেখা প্রণয়নে সহযোগিতা করতে আগ্রহী।’

গ্রন্থনা ও সম্পাদনা : মাহতাব শফি, ইয়াসিন

ভিডিও দেখুন


সর্বশেষ

আরও খবর

করোনায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু, ৭৮ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ শনাক্ত

করোনায় আরও ৩০ জনের মৃত্যু, ৭৮ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ শনাক্ত


ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় মজনুর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় মজনুর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড


মানুষের জন্য কিছু করতে পারাই আমাদের রাজনীতির লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী

মানুষের জন্য কিছু করতে পারাই আমাদের রাজনীতির লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী


ব্রিটেনে অবৈধ মাইগ্রেন্ট ঠেকাতে রাইট টু লেট্ অনলাইন চেক পদ্ধতি ২৫ নভেম্বর থেকে নতুন নিয়মে বাড়ী ভাড়া

ব্রিটেনে অবৈধ মাইগ্রেন্ট ঠেকাতে রাইট টু লেট্ অনলাইন চেক পদ্ধতি ২৫ নভেম্বর থেকে নতুন নিয়মে বাড়ী ভাড়া


আনিসুল হত্যা: মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের রেজিস্ট্রার গ্রেপ্তার

আনিসুল হত্যা: মানসিক স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউটের রেজিস্ট্রার গ্রেপ্তার


পাওয়ার গ্রিডের আগুনে বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন পুরো সিলেট, ব্যাপক ক্ষতি

পাওয়ার গ্রিডের আগুনে বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন পুরো সিলেট, ব্যাপক ক্ষতি


দুবাই পাচারকালে হিথ্রো বিমানবন্দরে ১২ লক্ষ পাউন্ড সহ দুই চেকরিপাবলিক নাগরিককে আটক করেছে ব্রিটিশ ইমিগ্রেশন

দুবাই পাচারকালে হিথ্রো বিমানবন্দরে ১২ লক্ষ পাউন্ড সহ দুই চেকরিপাবলিক নাগরিককে আটক করেছে ব্রিটিশ ইমিগ্রেশন


দুইদিনের বিক্ষোভের ডাক বিএনপির

দুইদিনের বিক্ষোভের ডাক বিএনপির


বাস পোড়ানোর মামলায় বিএনপির ২৮ নেতাকর্মী রিমান্ডে

বাস পোড়ানোর মামলায় বিএনপির ২৮ নেতাকর্মী রিমান্ডে


অবশেষে পাঁচ বছর পর নেপালকে হারালো বাংলাদেশ

অবশেষে পাঁচ বছর পর নেপালকে হারালো বাংলাদেশ