Sunday, March 4th, 2018
সময় মতো ‘ব্রেক্সিট’ কার্যকর না হওয়ার শঙ্কা, চাপ বাড়ছে থেরেসার
March 4th, 2018 at 7:32 pm
সময় মতো ‘ব্রেক্সিট’ কার্যকর না হওয়ার শঙ্কা, চাপ বাড়ছে থেরেসার

সৈয়দ ইফতেখার আলম, ঢাকা: ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে যুক্তরাজ্যের বের হয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়া বা ‘ব্রেক্সিট’ কার্যকরে ধীর গতির অভিযোগ উঠেছে থেরেসা মের বিরুদ্ধে। এমন অভিযোগের সুর নতুন কোনো তথ্য নয়। তবে এর পাল্লা ক্রমেই ভারী থেকে আরো ভারী হচ্ছে সেটিই নতুন শঙ্কা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর জন্য। বিরোধী লেবার পার্টিই নয়, নিজ দল কনজারভেটিভদেরও কথা শুনতে হচ্ছে তাকে। বিশ্লেষকরা বলছেন, যেই ব্রেক্সিট ইস্যুর ওপর নির্ভর করছে যুক্তরাজ্যের পরবর্তী অর্থনীতি সেই ইস্যুতে কোনো উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি সম্প্রতি দেখাতে পারছেন না থেরেসা মে। এতে তাদের শঙ্কা ঘোষিত সময়ে এটি কার্যকর হয়ত নাও হতে পারে।

এ নিয়ে ইউরোপীয়ান পলিসি সেন্টারের প্রধান নির্বাহী ফেবিয়ান জুলেইগ বলেন, সময় খুব কম। দুই পক্ষকে (ইইউ এবং ব্রিটেন) এই বিন্দুতে পৌঁছতে হবে, কেবল চুক্তি বা খসড়া প্রকাশই নয়, হতে হবে এক মত। এক মত হয়ে আগামী এক বছরের মধ্যে ব্রেক্সিট বাস্তবায়নের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। বেশি দেরি করে ফেললে, ইউরোপের শেয়ার বাজার ও অর্থনীতিতে সেটি প্রভাব পড়তে পারে বলে মনে করেন তিনি।

এদিকে, শুক্রবার ইইউ ও ব্রিটেনের মধ্যে ভবিষ্যত অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিষয়ে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। সেখানে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন দ্রুতই সব কিছু মিটমাট করে ফেলতে পারার।

এরইমধ্যে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি ব্রেক্সিট চুক্তির বিষয়ে প্রথমবারের মতো খসড়া প্রস্তাবনা প্রকাশ করেছে ইইউ। এতে ইইউ থেকে ব্রিটেনের বেরিয়ে যাওয়ার বিষয়ে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা রয়েছে বলে দাবি সংস্থাটির। তবে এটি প্রকাশের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই প্রত্যাখ্যান করেছেন থেরেসা। খসড়াটি কিছুই হয়নি বলে তিনি ব্রিটিশ সংসদে বলেন। কিছু হয়নি, এটি বিরোধীরা মানলেও, এর সংশোধন কী করে করা যায় তা নিয়ে সংসদে প্রশ্নবানে জর্জরিত হতে হয় তাকে। লেবার পার্টির নেতা বামপন্থি জেরেমি করবিন টানা কয়েকটি প্রশ্ন করেন। সংসদে উত্তেজনা দেখা দেয়।

মূলত সমস্যার শুরু, খসড়া প্রস্তাবে ব্রিটেনের অংশ নর্দান আয়ারল্যান্ড ও ইইউ-ভুক্ত আয়ারল্যান্ডের সীমান্ত নিয়ে। কঠোর কোনো সীমান্ত রেখা না টেনে নর্দান আয়ারল্যান্ডকে ইউরোপের অভিন্ন বাণিজ্য নীতি অনুসরণ করতে বলা হয়েছে। যাতে আপত্তি ব্রিটিশদের। এতে করে তুলনামূলক পিছিয়ে পড়া ইউরোপের অন্যান্য দেশের মানুষজন এই সুবিধা নিয়ে অবাধে ব্রিটেনে প্রবেশ করবে। যা তাদের নিজস্ব বাজার ব্যবস্থা এবং নিজস্ব অঙ্গরাজ্যের জন্য হুমকি হবে বলে উল্লেখ করেছেন থেরেসা মে।

এ অবস্থায় আরো একটি শঙ্কা ঘুরপাক খাচ্ছে ব্রিটিশ সরকারের চোখের সামনে। তা হলো, অন্তর্বর্তী ব্যবস্থা। সময়মতো ইইউ থেকে বেরিয়ে গেলেও স্বাভাবিকভাবে আরো কিছুদিন বাণিজ্য ও নানাবিধ ইইউ সুবিধা নেবে যুক্তরাজ্য। এটি হলো অন্তর্বর্তী ব্যবস্থা। যা ২০২০ সালে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ের মধ্যে হতে পারে। কিন্তু সময় মতো যদি ব্রেক্সিট বাস্তবায়ন না করা যায় তবে এই সুবিধাও হুমকির মধ্যে পড়বে। এটিকে কী করে সামলে নেন থেরেসা মে সেটিই এখন দেখার বিষয়।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ২৩ জুন গণভোটের মধ্যদিয়ে ব্রিটিশ নাগরিকরা রায় দেন, তারা আর ইইউ-এর মধ্যে থাকতে চান না। সার্বিক প্রক্রিয়া শেষে ২০১৯ সালের ২৯ মার্চ ব্রেক্সিট কার্যকর হবে বলে দিনক্ষণ ঠিক করে রেখেছে কনজারভেটিভ সরকার। কাঁটায় কাঁটায় আর এক বছর সময় আছে এতে।

গ্রন্থনা ও সম্পাদনা: জাই


সর্বশেষ

আরও খবর

রিজভী-দুলুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি

রিজভী-দুলুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি


অপারেশনের পর সুস্থ আছেন খালেদা জিয়া: ফখরুল

অপারেশনের পর সুস্থ আছেন খালেদা জিয়া: ফখরুল


বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে জড়িতদের খোঁজার নির্দেশনা চেয়ে রিট

বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে জড়িতদের খোঁজার নির্দেশনা চেয়ে রিট


সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস: প্রধান বিচারপতির উদ্বেগ, আশ্বাস আইনমন্ত্রীর

সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস: প্রধান বিচারপতির উদ্বেগ, আশ্বাস আইনমন্ত্রীর


বিএফইউজের নতুন সভাপতি ফারুক, মহাসচিব দীপ

বিএফইউজের নতুন সভাপতি ফারুক, মহাসচিব দীপ


রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ঠেকাতেই মুহিবুল্লাহকে হত্যা: পুলিশ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ঠেকাতেই মুহিবুল্লাহকে হত্যা: পুলিশ


ইকবালকে জেরা করছে পুলিশ, সারাদেশে গ্রেফতার ৫৮৪

ইকবালকে জেরা করছে পুলিশ, সারাদেশে গ্রেফতার ৫৮৪


কুমিল্লার মণ্ডপে কোরআন রাখা ব্যক্তি শনাক্ত

কুমিল্লার মণ্ডপে কোরআন রাখা ব্যক্তি শনাক্ত


কুমিল্লার মূল অভিযুক্ত পালিয়ে বেড়াচ্ছে, দ্রুতই গ্রেপ্তার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কুমিল্লার মূল অভিযুক্ত পালিয়ে বেড়াচ্ছে, দ্রুতই গ্রেপ্তার: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী


হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

হামলায় জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ