Sunday, January 27th, 2019
‘সেবা দিতে ব্যর্থ হলে চিকিৎসকদের চাকরি থাকবে না’
January 27th, 2019 at 5:09 pm
‘সেবা দিতে ব্যর্থ হলে চিকিৎসকদের চাকরি থাকবে না’

ঢাকা: চিকিৎসা সেবা দিতে ব্যর্থ হলে চিকিৎসক ও নার্সদের চাকরি ছেড়ে দিতে হবে বলে হুঁশিয়ার করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার সচিবালয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে এসে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশ দেন।

চিকিৎসকদের উপজেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতে এক বছর থাকতে হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, চিকিৎসকদের দুই বছর ইন্টার্নশিপের ব্যবস্থা করতে হবে, এক বছর থাকতে হবে উপজেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, সরকারি হাসপাতালগুলোতে বায়োমেট্রিক পদ্ধতি চালু করে চিকিৎসকদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে হবে।

বেসরকারি মেডিকেল কলেজের শিক্ষার মান বাড়ানোর তাগিদ দিয়ে তিনি বলেন, বেসরকারি মেডিকেল কলেজের প্রতি আরও নজর দেয়া প্রয়োজন। মান ও সেবা দুটোরই উন্নয়ন প্রয়োজন। আগামীতে প্রতিটি বিভাগীয় শহরে আরও বড় মাপের হাসপাতাল গড়ে তোলা হবে।

প্রধানমন্ত্রী জানান, আগামীতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ আরো সম্প্রসারণ করা হবে। আটটি বিভাগীয় শহরে ১০০ শয্যা বিশিষ্ট ক্যান্সার হাসপাতাল স্থাপন করা হবে। ১০ হাজার চিকিৎসক নিয়োগের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে৷

মন্ত্রণালয়কে উদ্দেশ্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মেডিকেল কলেজগুলোতে চিকিৎসা বিদ্যায় পর্যাপ্ত শিক্ষকের অভাব রয়েছে৷ তাদের উৎসাহিত করতে প্রণোদনার ব্যবস্থা করা যেতে পারে।রোগীদের নিবিড় সেবা দিতে নার্সদের কর্মপরিধি সুনির্দিষ্ট করা প্রয়োজন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমার পরিষ্কার কথা, আমি সুযোগ সৃষ্টি করে দিচ্ছি, রোগী যেন সেবা পায়। আর রোগী যদি সেবা না পায় তো সে নার্স কেন আমি পালন-পোষণ করব। এই বিষয়টা একদম পরিষ্কার করে দেয়া উচিত। তাদের যে কাজ সে সম্পর্কে একটি লিখিত তৈরি করে দেয়া উচিত যে একজন নার্সের কী দায়িত্ব পালন করতে হবে। সেভাবেই ট্রেনিংয়ের সময় এই শিক্ষাটা তাদের দিয়ে দিতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের এখানে ডাক্তার থাকে না, নার্স থাকে না- এটা অনবরত একটা নালিশ। বিশেষ করে ডাক্তার না থাকা। কিন্তু আমি বলব, এখন ডিজিটাল সিস্টেম। এখন আইডি কার্ডও করা আছে। বায়োমেট্রিকে উপস্থিত-অনুপস্থিত কী জিনিস সেটা নেয়া যায়। সে ব্যবস্থা প্রত্যেকটা সরকারি হাসপাতালে করে দেয়া উচিত যে তারা কখন আসল-না আসল সেটা বায়োমেট্রিক সিস্টেমে চালু হবে। এটা করতে হবে।

মানুষের খাদ্যাভ্যাস ও জীবন-যাপন নিয়মের মধ্যে আনতে প্রচারণা চালানো উচিত বলেও মনে করেন প্রধানমন্ত্রী। দেশে স্বাস্থ্যকর মেডিকেল বর্জ্য ব্যবস্থাপনা গড়ে ওঠেনি জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সেক্ষেত্রে আমাদের একটা বিশেষ পদক্ষেপ নেয়া দরকার। এটা বাইরে ফেলতে পারে না এটা ডিসপোস করতে হবে, সেই সিস্টেমটা তৈরি করতে হবে।

এ সময় স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক ও প্রতিমন্ত্রী মো. মুরাদ হাসানসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং অধীন সংস্থা প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।

গ্রন্থনা ও সম্পাদনা: এম কে রায়হান


সর্বশেষ

আরও খবর

টানা তৃতীয়বারের মতো নির্বাচিত হলেন আইভী

টানা তৃতীয়বারের মতো নির্বাচিত হলেন আইভী


অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে বাস চলার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন

অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে বাস চলার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন


আগুনে পুড়ল রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ১২০০ ঘর

আগুনে পুড়ল রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ১২০০ ঘর


এবারের বিজয় দিবসে দেশবাসীকে শপথ পড়াবেন প্রধানমন্ত্রী

এবারের বিজয় দিবসে দেশবাসীকে শপথ পড়াবেন প্রধানমন্ত্রী


কমলো এলপিজির দাম

কমলো এলপিজির দাম


উন্নয়নশীল দেশ নিয়ে খুশি না হয়ে, উন্নত দেশ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

উন্নয়নশীল দেশ নিয়ে খুশি না হয়ে, উন্নত দেশ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির


জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম মারা গেছেন

জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম মারা গেছেন


ডিআরইউর নতুন সভাপতি মিঠু, সাধারণ সম্পাদক হাসিব

ডিআরইউর নতুন সভাপতি মিঠু, সাধারণ সম্পাদক হাসিব


ওমিক্রন খুবই ঝুঁকিপূর্ণ; সবাইকে প্রস্তুত থাকার আহ্বান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার

ওমিক্রন খুবই ঝুঁকিপূর্ণ; সবাইকে প্রস্তুত থাকার আহ্বান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার


নির্বাচনী সহিংসতায় ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু

নির্বাচনী সহিংসতায় ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু