Saturday, January 4th, 2020
সোলেমানি হত্যা: বিশ্বকে যুদ্ধে ঠেলে দিলেন ট্রাম্প?
January 4th, 2020 at 9:54 am
সোলেমানি হত্যা: বিশ্বকে যুদ্ধে ঠেলে দিলেন ট্রাম্প?
সোলেমানি হত্যা: বিশ্বকে যুদ্ধে ঠেলে দিলেন ট্রাম্প?
ইরানের সবচেয়ে প্রভাবশালী সামরিক কমান্ডার কাসেম সোলেমানিকে বাগদাদ বিমানবন্দরে ড্রোন থেকে মিসাইল ছুড়ে হত্যা করার মধ্যে দিয়ে বিশ্বকে চরম উদ্বেগের মধ্যে ঠেলে দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। 

সোলেমানিকে হত্যা করে মধ্যপ্রাচ্য তথা বিশ্বকে নতুন করে যুদ্ধে ঠেলে দেয়া হলো –এমন মনে করছেন অনেকেই; আর এতে সাবেক মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনও কন্ঠ মিলিয়ে বলেছেন,“বারুদের বাক্সে ডনাল্ড ট্রাম্প ডিনামাইট ছুড়ে দিয়েছেন।”

অন্যদিকে বিচার বহির্ভূত হত্যা বিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ দূত অ্যাগনেস ক্যালামার্ড এক টুইটে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের এই পদক্ষেপ নিয়ে প্রশ্ন তুলে বলেছেন, এভাবে কাউকে হত্যার ঘটনা আন্তর্জাতিক আইনে বৈধতা পেতে পারে না, সোলেমানি ও অন্যদের যেভাবে হত্যা করা হয়েছে তা পুরোপুরি বেআইনি।  

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনির পর দেশটির সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত এই মেজর জেনারেল কাসেম সোলেমানি ছিলেন বিপ্লবী গার্ডস বাহিনীর এলিট ইউনিট কুদস ফোর্সের প্রধান। দেশের বাইরে ইরানের সামরিক ও রাজনৈতিক প্রভাব বিস্তারের চেষ্টায় সোলেমানি ছিলেন মূখ্য ভূমিকায়; আর সাম্প্রতিক সময়ে ইরানের পররাষ্ট্র নীতি নির্ধারণেও তার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল।

বিবিসি জানায়, সিরিয়া থেকে শুক্রবার ভোরে কয়েকজন সঙ্গীকে সাথে নিয়ে বাগদাদে পৌঁছান ইরানের কুদস ফোর্সের প্রধান সোলেমানি। বাগদাদ বিমানবন্দর থেকে দুটি গাড়িতে করে রওনা হন তারা। বিমানবন্দরের কার্গো টার্মিনালের কাছে পৌঁছতেই একটি মার্কিন ড্রোন থেকে গাড়িদুটি লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়। এতে ঘটনাস্থলেই সোলেমানিসহ অন্তত সাতজন নিহত হন। বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, নিহতদের মধ্যে সোলেমানির সঙ্গে একই গাড়িতে থাকা ইরাকি মিলিশিয়া কমান্ডার আবু মাহদি আল-মুহান্দিসও ছিলেন। আর অন্য গাড়িটিতে ছিলেন আল-মুহান্দিসের পপুলার মোবিলাইজেশন ফোর্সের সদস্যরা।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো বলছে, গত দুই দশক ধরে ইরাক, ইয়েমেন, সিরিয়া ও লেবাননের মত দেশে শিয়া মিলিশিয়া গোষ্ঠীগুলোর শক্তিশালী হয়ে ওঠার পেছনে তিনিই ছিলেন প্রধান রূপকার । এর মোকাবেলায় তেহরানের আঞ্চলিক শত্রু সৌদি আরব, ইসরায়েল এবং যুক্তরাষ্ট্রকে বেগ পেতে হয়েছে। ফলে বহুদিন ধরেই তিনি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েলের ‘টার্গেট’।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও গত এপ্রিলে ইরানের রেভুলিউশনারি গার্ডস ও কুদস ফোর্সকে ‘বিদেশি সন্ত্রাসী সংগঠন’ হিসেবে ঘোষণা করেন। ইরান সমর্থিত মিলিশিয়া বাহিনীর ঘাঁটিতে মার্কিন হামলায় ২৫ জন নিহত হওয়ার পর দুদিন আগে বাগদাদে মার্কিন দূতাবাসে হামলা-ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। জেনারেল কাসেম সোলেমানির পরিকল্পনায় ওই হামলা হয়েছিল বলে পেন্টাগন দাবি করে আসছে, যদিও তা অস্বীকার করেছে ইরান।

এদিকে জেনারেল কাসেম নিহত হওয়ার পর পেন্টাগনের এক বিবৃতিতে বলা হয়, “ইরাকসহ আশপাশের অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতিক এবং কর্মকর্তাদের ওপর হামলার পরিকল্পনা করছিলেন সোলেমানি। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের নির্দেশে মার্কিন বাহিনী বিদেশে তাদের সদস্যদের সুরক্ষার স্বার্থে ‘প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা হিসেবে’ কাসেম সোলেমানিকে হত্যা করেছে। ইরানের ভবিষ্যত হামলা পরিকল্পনা নস্যাৎ করে দেওয়াই ছিল এই আক্রমণের উদ্দেশ্য। বিশ্বের যেখানেই আমাদের নাগরিক ও সম্পদ রয়েছে, তা রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় সব রকম ব্যবস্থাই যুক্তরাষ্ট্র নেবে।”

সোলেমানিকে হত্যার পর নিজেও কথা বলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল ট্রাম্প। শুক্রবার ফ্লোরিডার পাল্ম বিচে তার মার-অ্যা-লাগো রিসোর্টে সাংবাদিকদের ডেকে তিনি বলেন, “আমরা তার অভিনয় ধরে ফেলেছি এবং তাকে খতম করেছি। প্রয়োজনে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত আছি। গতরাতে যুদ্ধ বন্ধ করার জন্যই আমরা পদক্ষেপ নিয়েছি। আরেকটি যুদ্ধ শুরু করতে নয়। ইরানের শাসনব্যবস্থায় পরিবর্তন চায় না আমেরিকা। তবে আমেরিকা যে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া জন্য প্রস্তুত রয়েছে, যদি আমেরিকাকে কোনো হুমকির মুখে ফেলে ইরান। আমার যুদ্ধ শুরু করার জন্য ব্যবস্থা নিইনি। সোলেমানি তার অসুস্থ আবেগের জন্য অনেক নিষ্পাপ মানুষকে হত্যা করেছে।”

অপরদিকে, সোলেমানি নিহত হওয়ার ঘটনায় আমেরিকার ওপর ‘তীব্র প্রতিশোধ’ নেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি জানিয়েছেন ইরানের সর্ব্বোচ্চ নেতা আয়াতোল্লাহ আলি খামেনি। শুক্রবার সোলেমানি হত্যার ঘটনায় প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে এ হুঁশিয়ারি জানান খামেনি। খামেনি বলেন, সোলেমানির শহীদ হলেও তার কাজ বন্ধ থাকবে না; কিন্তু, যারা নিজেদের হাতে সোলেমানি ও অন্য শহীদদের রক্ত লাগিয়েছে তারা যেন তীব্র প্রতিশোধের অপেক্ষায় থাকে।  অবশ্য খামেনির এই হুঁশিয়ারির পর ইরানকে প্রতিরোধের পদক্ষেপ হিসেবে মধ্যপ্রাচ্যে নতুন করে তিন হাজার মার্কিন সৈন্য পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।


সর্বশেষ

আরও খবর

রিজভী-দুলুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি

রিজভী-দুলুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি


অপারেশনের পর সুস্থ আছেন খালেদা জিয়া: ফখরুল

অপারেশনের পর সুস্থ আছেন খালেদা জিয়া: ফখরুল


বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে জড়িতদের খোঁজার নির্দেশনা চেয়ে রিট

বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে জড়িতদের খোঁজার নির্দেশনা চেয়ে রিট


সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস: প্রধান বিচারপতির উদ্বেগ, আশ্বাস আইনমন্ত্রীর

সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস: প্রধান বিচারপতির উদ্বেগ, আশ্বাস আইনমন্ত্রীর


বিএফইউজের নতুন সভাপতি ফারুক, মহাসচিব দীপ

বিএফইউজের নতুন সভাপতি ফারুক, মহাসচিব দীপ


কালীপূজায় হবে না দীপাবলি!

কালীপূজায় হবে না দীপাবলি!


রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ঠেকাতেই মুহিবুল্লাহকে হত্যা: পুলিশ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ঠেকাতেই মুহিবুল্লাহকে হত্যা: পুলিশ


সহিংসতায় নিহত ৬ রোহিঙ্গা, ইউএন বলছে ৭

সহিংসতায় নিহত ৬ রোহিঙ্গা, ইউএন বলছে ৭


ইকবালকে জেরা করছে পুলিশ, সারাদেশে গ্রেফতার ৫৮৪

ইকবালকে জেরা করছে পুলিশ, সারাদেশে গ্রেফতার ৫৮৪


সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস, সংবিধান এবং আশাজাগানিয়া মুরাদ হাসান

সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস, সংবিধান এবং আশাজাগানিয়া মুরাদ হাসান