Thursday, August 4th, 2016
সৌদিতে খাবার সঙ্কটে বাংলাদেশের শতাধিক শ্রমিক
August 4th, 2016 at 2:53 pm
সৌদিতে খাবার সঙ্কটে বাংলাদেশের শতাধিক শ্রমিক

সৌদি: সৌদিতে হঠাৎ করে কাজ হারিয়ে একরকম না খেয়ে দিন কাটছে বাংলাদেশের শতাধিক নাগরিকের। আঠারো বছর ধরে সৌদিতে কাজ করেছেন ফরিদপুরের মিজানুর রহমান। কিন্তু হঠাৎ করে কাজ হারানোয় এবার তার দিন কাটছে কোনও রকমে একবেলা খেয়ে।

তিনি টেলিফোনে বলেন, ‘এখন একবেলা খানা খাই। তিন বেলার খাবারের জায়গায় দিনের মধ্যে একবেলা খাই। ভারতের কিছু বড় বড় কোম্পানি আছে তারা সাহায্য করছে। তারা মূলত ভারতীয়দের সাহায্য করছে,  সেখান থেকে আমরাও কিছু কিছু পাই।’

মিজানুর রহমান জানান, যেখানে তিনি কাজ করতেন সেখানে বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, ফিলিপিন্স এবং শ্রীলংকার শ্রমিকরা কাজ করতো। একবছর আগে কোম্পানির নিবন্ধন বাতিল হয়ে যায়। এরপর থেকে বেতন বন্ধ করে দেয়া হয়। গত চারমাস ধরে খাওয়াও বন্ধ। ইসলামী দাওয়াত সেন্টার নামে একটি প্রতিষ্ঠান রমজান মাসে খাবার দিয়েছিল। এরপর আরেকটি কোম্পানি কিছু চাল-ডাল দিয়ে যায়। ‘এখন করুণ অবস্থা কারও কাছে এক টাকাও নাই’ বলে তিনি উল্লেখ করেন।

মিজানুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, ‘দূতাবাসের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন, কিন্তু তারা ব্যবস্থা নিবেন কিভাবে? দূতাবাসের কোনও কর্মকর্তা এসে দেখেন নি আমারা কি অবস্থায় আছি। খেয়ে আছি না না খেযে আছি এসে কেউ দেখে নাই। শুধু বলে আসবো আসবো।’

কারও আকামা নাই। আকামা ছাড়া গেটের বাইরে যাওয়া যায় না। গেটের বাইরে গেলেই পুলিশ আক্রমণ করে। একবার পুলিশ ধরলেই ২০হাজার টাকা জরিমানা করে জানান তিনি।

‘এখন বাংলাদেশের পক্ষ থেকে কোনও মন্ত্রী বা বড় কোন বড় মানুষ যদি আমাদের পাশে দাঁড়ায় তাহলে হয়তো একটা কিছু হবে। যদি কোনও প্রতিষ্ঠানে বদলি হয়ে কাজ করতে পারি, তা বদলি হতেও ৭০/৮০ হাজার টাকা লাগে। মানুষ খেতেই পায় না এত টাকা কোথা থেকে দিব?’

আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম ক্রমাগত পড়তে থাকায় সৌদিতে বহু কোম্পানিতে কাজ বন্ধ হতে শুরু করেছে গত বছর থেকেই। সবচেয়ে বেশি শোচনীয় অবস্থা নির্মাণ সংস্থাগুলোর। অনেক প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকদের হঠাৎ করেই ছাঁটাই করা হয়েছে। অনেকে মাসের পর মাস বেতন পাচ্ছেন না, শ্রমিকদের জন্য নির্মিত শিবিরগুলোতে তাদের দিন কাটছে প্রায় অভূক্ত অবস্থায়।

আরেকজন বাংলাদেশী শ্রমিক ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা এলাকার আব্দুল করিম জানান, ১৪০ জনেরও বেশি বাংলাদেশি শ্রমিক এখন এ অবস্থায় আছেন। কর্তৃপক্ষ বলছে, এশিয়ার বিভিন্ন দেশ থেকে আসা শ্রমিক, যারা সে দেশে বেকার রয়েছেন, তারা যাতে অন্য চাকরিতে ঢুকতে পারেন বা দেশ ত্যাগ করতে পারেন সে লক্ষ্যে বিধি-নিষেধ শিথিল করা হবে।

ভারতীয় শ্রমিকদের মধ্যে প্রায় আট হাজার বেকার হয়ে পড়েছেন। তবে তাদের ভবিষ্যত নিয়ে কথা বলতে সে দেশের মন্ত্রী পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ভিকে সিং এখন জেদ্দায় রয়েছেন। সূত্র-বিবিসি।

নিউজনেক্সটবিডি ডটকম/এসপিকে/ওয়াইএ


সর্বশেষ

আরও খবর

রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে জাতিসংঘের স্পষ্ট রোডম্যাপ চায় বাংলাদেশ

রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে জাতিসংঘের স্পষ্ট রোডম্যাপ চায় বাংলাদেশ


জুলাই থেকে গণটিকা কার্যক্রম শুরু করা হবে

জুলাই থেকে গণটিকা কার্যক্রম শুরু করা হবে


আবারও একদিনে পঞ্চাশের বেশি মৃত্যু, শনাক্ত তিন হাজারের বেশি

আবারও একদিনে পঞ্চাশের বেশি মৃত্যু, শনাক্ত তিন হাজারের বেশি


আইসিসির মে মাসের সেরা হলেন মুশফিক

আইসিসির মে মাসের সেরা হলেন মুশফিক


এবারের বাজেটে কোনো দুর্বলতা নেই দাবি অর্থমন্ত্রীর

এবারের বাজেটে কোনো দুর্বলতা নেই দাবি অর্থমন্ত্রীর


বসবাস অযোগ্য শহরের তালিকায় চতুর্থ ঢাকা

বসবাস অযোগ্য শহরের তালিকায় চতুর্থ ঢাকা


বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৫ শতাংশ কর আরোপের প্রতিবাদে মানববন্ধন

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৫ শতাংশ কর আরোপের প্রতিবাদে মানববন্ধন


মঙ্গলবারে করোনায় শনাক্ত ও মৃত্যু এক মাসের সর্বোচ্চ

মঙ্গলবারে করোনায় শনাক্ত ও মৃত্যু এক মাসের সর্বোচ্চ


বিধিনিষেধ বাড়ল ১৬ জুন পর্যন্ত

বিধিনিষেধ বাড়ল ১৬ জুন পর্যন্ত


বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত ৪ খুনির খেতাব বাতিল

বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত ৪ খুনির খেতাব বাতিল