Sunday, November 13th, 2016
স্বাধীনতা বিরোধীকে প্লট দেয়ার কারণ জানতে চায় হাইকোর্ট
November 13th, 2016 at 6:24 pm
স্বাধীনতা বিরোধীকে প্লট দেয়ার কারণ জানতে চায় হাইকোর্ট

ঢাকা: স্বাধীনাতাবিরোধী পাকিস্তানের সাবেক গভর্নর মোনায়েম খানের বাড়ির রাস্তার পাশে সবুজায়নের জন্য বরাদ্দকৃত ৫০ ফিট বাই ২০০ ফিট জায়গা রাজউক ও সিটি করপোরেশনের যৌথ জরিপের মাধ্যমে চিহ্নিত করে দখল মুক্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এই আদেশ বাস্তবায়ন করে আগামী ১৫ নভেম্বরের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে আদেশ দিয়েছেন আদালত।

একই সঙ্গে স্বাধীনাতা বিরোধী মোনায়েম খানকে কোন ক্ষমতাবলে পাঁচ বিঘা ১৫ ছটাকের প্লট বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে মোনায়েম খানের পরিবার ও রাজউকসহ সংশ্লিষ্টদের উক্ত রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। পরে এই তথ্য সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন সিটি করপোরেশনের আইনজীবী শাহজাদা আল আমিন কবির (সোহেল) ।

রোববার স্বঃপ্রণোদিত হয়ে হাইকোর্টের বিচারপতি মো. ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

সিটি করপোরেশনের পক্ষে আদালতে শুনানি করেন আইনজীবী আহসানুল করিম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলন ডেপুর্টি অ্যাটর্নি জেনারেল মোতাহার হোসেন সাজু।

এর আগে বনানীর ২৭ নম্বর রোডে ১১০ নম্বর বাড়িতে ডিএনসিসি’র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. নুরুজ্জামান শরীফ ও মো: সাজিদ আনোয়ারের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন। ওই বাড়ির সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে ফেলা হয়। ডিএনসিসির এই উচ্ছেদ অভিযান স্থগিত চেয়ে হাইকোর্টে আসেন মোনায়েম খানের ছেলে মো. কামারুজ্জামান খান।

গত ০৭ নভেম্বর হাইকোর্টের স্থিতিতাবস্থা থাকা সত্ত্বেও মোনায়েম খানের বাড়ি (বনানীর ২৭ নম্বর রোডে ১১০ নম্বর বাড়ি) কেন উচ্ছেদ করা হলো তার ব্যাখা জানতে চায় হাইকোর্ট।

সাত দিনের মধ্যে লিখিতভাবে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) কাছে এ ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়। একইসঙ্গে সাত দিনের জন্য সকল উচ্ছেদ কার্যক্রম স্থগিত রাখতে নির্দেশ দেয় আদালত। ডিএনসিসি ব্যাখ্যার ওপর আজ শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। ওই শুনানি শেষে আদালত আদেশ দেন।

জানা গেছে, বনানীর ব্লক-এ ১১০ নম্বরের পাঁচ বিঘার ১৫ ছটাক প্লটটি তৎকালীন ডিআইটি হতে ১৯৬৬ সালে বরাদ্দপ্রাপ্ত হয়ে ১৯৬৭ সালে লিজ দলিল সম্পাদন ও রেজিস্ট্রি করা হয়। ২০০৯ সালে ঢাকা সিটি করপোরেশন তাদের জায়গা দাবি করে একটি চিঠি দেন। ওই চিঠির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে একটি রিট দায়ের করা হয়। ওই বছরের ২৬ জানুয়ারি হাইকোর্ট স্থিতিবস্থা জারি করেন।

প্রতিবেদক: ফায়েজ, সম্পাদনা: জাহিদ


সর্বশেষ

আরও খবর

আসামে বন্দী রোহিঙ্গা কিশোরীকে কক্সবাজারে চায় পরিবার

আসামে বন্দী রোহিঙ্গা কিশোরীকে কক্সবাজারে চায় পরিবার


ছয় দিনে নির্যাতিত অর্ধশত সাংবাদিক: মামলা নেই, কাটেনি আতঙ্ক

ছয় দিনে নির্যাতিত অর্ধশত সাংবাদিক: মামলা নেই, কাটেনি আতঙ্ক


ঢাকা-দিল্লি ৫ সমঝোতা স্মারক সই

ঢাকা-দিল্লি ৫ সমঝোতা স্মারক সই


করোনায় আরও ৩৯ মৃত্যু

করোনায় আরও ৩৯ মৃত্যু


করোনায় আক্রান্ত শচীন

করোনায় আক্রান্ত শচীন


নাশকতা ঠেকাতে র‍্যাব-পুলিশের কঠোর অবস্থান

নাশকতা ঠেকাতে র‍্যাব-পুলিশের কঠোর অবস্থান


শুক্র ও শনিবার যান চলাচল নিয়ন্ত্রিত থাকবে

শুক্র ও শনিবার যান চলাচল নিয়ন্ত্রিত থাকবে


মতিঝিলে মোদিবিরোধী বিক্ষোভ, শিশুবক্তা রফিকুলসহ অন্তত ১০ জন আটক

মতিঝিলে মোদিবিরোধী বিক্ষোভ, শিশুবক্তা রফিকুলসহ অন্তত ১০ জন আটক


ঈদের পর স্কুল-কলেজ খোলার ইঙ্গিত শিক্ষামন্ত্রীর

ঈদের পর স্কুল-কলেজ খোলার ইঙ্গিত শিক্ষামন্ত্রীর


৮ মাস পর দেশে করোনায় এক দিনে সর্বোচ্চ ৩৫৫৪ শনাক্ত

৮ মাস পর দেশে করোনায় এক দিনে সর্বোচ্চ ৩৫৫৪ শনাক্ত