Tuesday, June 28th, 2016
হাজী মোহাম্মদ দানেশের প্রয়াণ
June 28th, 2016 at 10:06 am
হাজী মোহাম্মদ দানেশের প্রয়াণ

ডেস্ক: আজ ২৮ জুন (মঙ্গলবার)। বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী কিংবদন্তি কৃষক নেতা হাজী মোহাম্মদ দানেশের ৩০ তম মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৮৬ সালের ২৮ জুন ভোর ৪টা ২৫ মিনিটে তিনি ঢাকার পিজি হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন।

রাজনীতিক এই প্রাণ পুরুষের এক ছেলে তিন মেয়ের মধ্যে ছেলে ফারুক দানেশ ও দুই মেয়ে ইতোমধ্যে মৃত্যুবরণ করেছেন। এক মেয়ে সুলতানা রেদওয়ানা রানু (৭২) শারীরিকভাবে অসুস্থ।

এই রাজনৈতিক নেতার নামে দিনাজপুরে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। তার গ্রামের বাড়ি বোচাগঞ্জ উপজেলার সুলতানপুর গ্রামে ১৯০৩ সালে। বাবার নাম ছিল মৌলভী সালামত উদ্দীন।

১৯২৩ সালে তিনি প্রথম বিভাগে প্রবেশিকা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। রাজশাহী কলেজ থেকে বিএ পাস করার পর তিনি এক বছর দিনাজপুর জুনিয়র মাদরাসায় প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন। পরে তিনি উচ্চ শিক্ষার্থে আলীগড় গমন করেন। সেখানকার মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৩১ সালে এমএ ও ১৯৩২ সালে এলএলবি ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৩৩ সালে দিনাজপুর জজ কোর্টে আইন ব্যবসা শুরু করেন।

১৯৩৮ সালে হাজী মোহাম্মদ দানেশ সক্রিয় রাজনৈতিক জীবনে প্রবেশ করেণ। ওই বছর তিনি ন্যাপ এর প্রথম সহ-সভাপতি ও পাকিস্তান ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির সিনিয়র সহ-সভাপতি নির্বাচিত হোন। ১৯৫৮ সালে সামরিক আইন জারি ও রাজনৈতিক তৎপরতায় গ্রেফতার করা হয় তাকে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে তিনি সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। ১৯৭২ সালে তিনি বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টিতে (লেলিন বাদী) যোগদান করেন। তিনি পূর্বেও কমিউনিস্ট আন্দোলনকে মনে প্রাণে ধারণ করেছিলেন।

১৯৭৩ সালের ডিসেম্বর মাসে তিনি অন্যান্য বামপন্থীদের একত্রিত করে জাতীয় গণমুক্তি ইউনিয়ন গঠন করেন এবং এই সংগঠনের সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৭৫ সালে দেশে সকল রাজনৈতিক দল নিষিদ্ধ করে বাকশাল গঠন করা হলে তিনি বাকশালে যোগদান করেন। এর আগে হাজী দানেশ যখন প্রথম সক্রিয় রাজনৈতিক জীবনে প্রবেশ করেন তখন তিনি কমিউনিস্ট পার্টির উদ্যোগে গঠিত জেলা কৃষক সমিতির সদস্য হন।

ভারতের কমিউনিষস্ট পার্টির প্রতিষ্ঠাতা কমরেড মুজাফফর আহাম্মদ এর দ্বারা তিনি গভীরভাবে প্রভাবিত হয়েছিলেন। ১৯৩৮ ও ১৯৪২ সালে কৃষক আন্দোলন গড়ে তোলার অপরাধে ২ বার তাকে কারাবন্দি করা হয়। এই সময় হাট বাজারে টোল আদায় করে ও জমিদারী প্রথা উচ্ছেদের দাবিতে তিনি তুমুল আন্দোলন গড়ে তোলেন।

১৯৪২ সালে রংপুরের (বর্তমান নীলফামারী) ডোমারে বঙ্গীয় কিষাণ সম্মেলন অনুষ্ঠানের তিনি ছিলেন প্রধান উদ্যোক্তা। এই সম্মেলনে তিনি নিখিল ভারত কিষাণ সভার সভাপতি নির্বাচিত হোন।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে হাজী মোহাম্মদ দানেশ দিনাজপুর-রংপুর ও জলপাইগুড়িসহ সারা উত্তরাঞ্চলে কৃষকদের এক জঙ্গি আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন। উপমহাদেশে এই আন্দোলন ঐতিহাসিক তেভাগা আন্দোলন নামে পরিচিত। এর আগে ১৯৪৫ সালে হাজী দানেশ মুসলিম লীগে যোগ দিয়েছিলেন।

১৯৪৬ সালে তেভাগা আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়ার কারণে মুসলিম লীগ থেকে বহিস্কৃত হন। সঙ্গে সঙ্গে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ১৯৪৭ সালে তিনি মুক্তি পান। ওই বছরই তিনি দিনাজপুর এসএন কলেজে ইতিহাসের অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৫৩ সালে পাকিস্তানের গণতান্ত্রিক দল গঠিত হলে তিনি ওই দলের সভাপতি নির্বাচিত হন। এ কারণে তাকে গ্রেফতার করা হয়। একই বছরে তিনি মুক্তি পান।ওই বছরই তিনি দিনাজপুর এসএন কলেজে যোগদান করেন।

১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্টের অংশীদার হিসেবে তার দল তদানিন্তন পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদে ১৪টি আসন লাভ করে। তিনি নিজেও নির্বাচিত হোন। পরর্তীতে যুক্তফ্রন্টের মন্ত্রিসভা ভেঙে দিলে অন্যান্যদের সঙ্গে তাকেও গ্রেফতার করা হয়। ১৯৫৬ সালে তিনি মুক্তি লাভ করেন এবং ১৯৫৭ সালে মাওলানা ভাষানীর ন্যাপ এ যোগ দেন।

তিনি পূর্ব পাকিস্তান ন্যাপ এর সভাপতি নির্বাচিত হোন। ১৯৭৫ সালে বাকশাল সরকারের পতন হলে জাতীয় গণমুক্তি ইউনিয়ন পুনরুজ্জীবিত করেন। তিনি গণতান্ত্রিক পার্টির অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। গণতান্ত্রিক পার্টি জাতীয় ফ্রন্টের শরিক ছিল। এই ফ্রন্ট পরে জাতীয় পার্টিতে রূপান্তরিত হলে তিনি জাতীয় কৃষক পার্টির প্রধান উপদেষ্টা মনোনীত হয়। একবার তিনি জাতীয় পার্টির টিকিটে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

নিউজনেক্সটবিডি ডটকম/ওয়াইএ


সর্বশেষ

আরও খবর

প্রয়াণের ২১ বছর…

প্রয়াণের ২১ বছর…


বীর উত্তম সি আর দত্ত আর নেই, রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক

বীর উত্তম সি আর দত্ত আর নেই, রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক


সংগীতের ভিনসেন্ট নার্গিস পারভীন

সংগীতের ভিনসেন্ট নার্গিস পারভীন


সিরাজগঞ্জে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে কামাল লোহানীকে

সিরাজগঞ্জে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে কামাল লোহানীকে


জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান আর নেই

জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান আর নেই


ওয়াজেদ মিয়ার ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

ওয়াজেদ মিয়ার ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ


একুশে পদকপ্রাপ্তদের হাতে পুরষ্কার তুলে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

একুশে পদকপ্রাপ্তদের হাতে পুরষ্কার তুলে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী


প্রধানমন্ত্রীর হাতে রান্না করা খাবার সাকিবের বাসায়

প্রধানমন্ত্রীর হাতে রান্না করা খাবার সাকিবের বাসায়


জাতীয় কবির মৃত্যুবার্ষিকী আজ

জাতীয় কবির মৃত্যুবার্ষিকী আজ


জাপানে হেইসেই যুগের অবসান হচ্ছে আজ

জাপানে হেইসেই যুগের অবসান হচ্ছে আজ