Friday, July 1st, 2016
‘হাতির বাচ্চা’ শ্রীলংকায় মর্যাদার প্রতীক
July 1st, 2016 at 5:03 pm
‘হাতির বাচ্চা’ শ্রীলংকায় মর্যাদার প্রতীক

কলম্বো: হাতির বাচ্চা পোষা অত্যন্ত ব্যয়বহুল একটি শখ। বর্তমানে শ্রীলংকায় অভিজাত এবং নব্য ধনীদের মধ্যে মর্যাদার প্রতীক হিসেবে এই শখটি ব্যাপকভাবে বিস্তার লাভ করেছে। ফলে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণবাদীরা আতংকের মধ্যে আছেন। তারা এই প্রবণতা বন্ধে সরকারকে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ শ্রীলংকায় হাতি পূজা করা হয়। ফলে পশুটিকে বন্দী করা আইনত বৈধ নয়।

কিন্তু কর্তৃপক্ষ জানায়, গত এক দশকের মধ্যে ন্যাশনাল পার্ক থেকে ৪০ টির বেশি হাতি চুরি করা হয়েছে। এসব হাতিকে পোষা প্রাণী হিসেবে বিক্রি করা হয়। একটি হাতির বাচ্চা ১ লাখ ২৫ হাজার ডলারে বিক্রি হয়।

এশীয় হাতি বিশেষজ্ঞ জয়ন্ত জয়াবর্ধনে বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানান, নব্য ধনীরা নিজেদের মর্যাদা বাড়ানোর জন্যই বাড়িতে হাতি পালার ব্যাপারে আগ্রহী হয়ে ওঠছেন।

সেইসঙ্গে তিনি স্মরণ করিয়ে দেন, প্রাচীনকালে শ্রীলংকায় অভিজাত শ্রেণির মানুষ নিজেদের বাড়িতে বন্যপ্রাণী পুষতেন। খানদানি সেই ঐতিহ্য বজায় রাখার জন্য এবং সমাজে জাতে ওঠার জন্য শ্রীলংকায় অনেকেই হাতির বাচ্চা পালছেন।

নিজ বাড়িতে হাতি পালার অপরাধে গত মাসে বিচারক থিলিনা গামাগেকে বন্যপ্রাণী এক্টিভিস্টদের চাপে পড়ে গ্রেফতার করতে বাধ্য হয় সরকার।

এছাড়া গত মার্চে রাজধানী কলম্বোর একটি মন্দিরে ২ বছর বয়সি হাতি রাখার অপরাধে বৌদ্ধ সন্যাসী উদুরে ধাম্মালোকাকে গ্রেফতার করা হয়।

সরকারি হাতির এতিমখানা থেকে বৌদ্ধ মন্দিরে হাতি উপহার দেয়ার যে ঐতিহ্য রয়েছে, এক্টিভিস্টদের জোরালো প্রতিবাদের মুখে সরকার তা করা থেকে বিরত রয়েছে।

তবে দেশটির শীর্ষস্থানীয় মন্দিরগুলি সরকারী এই পদক্ষেপের বিরুদ্ধাচারণ করছে। তাদের দাবি, এর ফলে বার্ষিক ধর্মীয় অনুষ্ঠানের জন্য ব্যবহৃত মন্দিরে পোষা হাতির সংখ্যা কমে যাচ্ছে।

চলতি বছরের শুরুতে নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জন কি শ্রীলংকা সফর করার সময় হাতির একটি বাচ্চা তাকে উপহার হিসেবে দেয়া হয়।

প্রাণী অধিকারকর্মীরা এই ঘটনায় ক্ষোভে ফেটে পড়েন। তারা উল্লেখ করেন, হাতির বাচ্চাকে মায়ের কাছ থেকে পৃথক করা অত্যন্ত নিষ্ঠুর একটি কাজ। ভবিষ্যতে যেন এধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হয় তার জন্য আবেদন জানানো হয়।

জয়ন্ত জয়াবর্ধনে জানান, হাতির মাতৃত্ব প্রবণতা অত্যন্ত শক্তিশালী। চোরা শিকারীরা মা হাতির সঙ্গে যুদ্ধ না করে বাচ্চাকে নিতে পারে না। এর ফলশ্রুতিতে মা হাতির মৃত্যু অনিবার্য হয়ে ওঠে।

তিনি জানান, মা হাতিকে ভয় দেখানোর জন্য চোরা শিকারিরা অগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করে। কখনো কখনো তাদের মেরেও ফেলে।

শ্রীলংকায় ইচ্ছাকৃতভাবে হাতি হত্যা করা গুরুতর অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হয়। এর জন্য মৃত্যুদণ্ডেরও বিধান রয়েছে। কিন্তু বিগত এক দশকে এই দণ্ডের প্রয়োগ দেখা যায়নি। সূত্র: এনডিটিভি

নিউজনেক্সটবিডি ডটকম/এফকে/জাই

 


সর্বশেষ

আরও খবর

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীকে আম পাঠালেন শেখ হাসিনা

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীকে আম পাঠালেন শেখ হাসিনা


ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে ১৭ বাংলাদেশির মৃত্যু

ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে ১৭ বাংলাদেশির মৃত্যু


ইরাকে করোনা হাসপাতালে আগুন; নিহত অর্ধশতাধিক

ইরাকে করোনা হাসপাতালে আগুন; নিহত অর্ধশতাধিক


কানাডায় তাপদাহে পাঁচ দিনে অন্তত ৫০০ মানুষের মৃত্যু

কানাডায় তাপদাহে পাঁচ দিনে অন্তত ৫০০ মানুষের মৃত্যু


দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমার ১৫ মাসের কারাদণ্ড

দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমার ১৫ মাসের কারাদণ্ড


সিরিয়ার পৃথক দুটি গোলাবর্ষণে নিহত ১৩

সিরিয়ার পৃথক দুটি গোলাবর্ষণে নিহত ১৩


বসবাস অযোগ্য শহরের তালিকায় চতুর্থ ঢাকা

বসবাস অযোগ্য শহরের তালিকায় চতুর্থ ঢাকা


মিয়ানমারে আবারও সেনাদের গুলি, নিহত কমপক্ষে ২০

মিয়ানমারে আবারও সেনাদের গুলি, নিহত কমপক্ষে ২০


ওড়িশায় আঘাত হেনেছে প্রবল ঘূর্ণিঝড় ইয়াস

ওড়িশায় আঘাত হেনেছে প্রবল ঘূর্ণিঝড় ইয়াস


গাজায় হামাস প্রধানের বাড়িতে ইসরায়েলের বোমা হামলা

গাজায় হামাস প্রধানের বাড়িতে ইসরায়েলের বোমা হামলা